জিন্স পড়ার আগে জেনে নিন এই ৫ টি অজানা তথ্য, অবাক হবেন

সামান্য যত্নেই দীর্ঘদিন জিন্সের পোষাক থাকে নতুনের মতো, জানেন কী? সবিস্তারে জেনে নিন কীভাবে..

নারী পুরুষ নির্বিশেষে মিতব্যয়ী এবং আরামপ্রিয় ভারতবাসীর মধ্যে বেশীরভাগ লোকের ওয়ার্ডড্রব খুললে প্রথমেই যেটা দেখতে পাবেন তাহল – বিভিন্ন রঙের, বিভিন্ন শেডের জিন্সের প্যান্ট, জামা, জ্যাকেট এর মত তাদের সব প্রিয় পোষাক। জিন্সের কাপড় সামান্য ভারী হলেও অত্যন্ত আরামদায়ক, টেকসই এবং বেশ সুলভ মূল্যে পাওয়া যায়। আরামদায়ক হওয়ায় ছোটো বড়, ছেলে মেয়ে সবারই পছন্দের মধ্যে পড়ে বিভিন্ন ডিজাইনের হরেক রকম জিন্সের পোষাক। ভারী কাপড় হওয়ায় জিন্সের পোষাক পরিষ্কার করা বা পরিচর্যা করা সামান্য কষ্টসাধ্য ব্যপার মনে হতে পারে। তবে, সঠিক উপায় জানা থাকলে জিন্সের পরিচর্যা পদ্ধতি আর কষ্টকর মনে হবে না।

জেনে নিন, আপনার শখের জিন্সটিকে কেমন করে আরোও বেশি দিন নতুনের মত এবং ব্যবহারের উপযুক্ত রাখবেন –

কাচার সময় ও রোদের শুকানোর সময় জিন্স উল্টিয়ে দিনঃ

জিন্স বার বার ধোয়ার পরে এর রঙ অনেকটা ফ্যাকাসে হয়ে আসে। তাই জিন্সকে নতুনের মত রাখতে হলে  কাচার আগে জিন্সটি উল্টিয়ে নিন এতে জিন্সের রং সরাসরি সাবানের সংস্পর্শে এসে ফ্যাকাসে হয়ে যাবে না। শুকোতে দেওয়ার সময়ও রোদের হাত থেকে জিন্সের রং বাঁচাতে জিন্সটিকে উল্টো অবস্থায় রোদে শুকাতে দিন।

ওয়াশিং মেশিনের ব্যবহার এড়িয়ে চলুন

ওয়াশিং মেশিনের কেন্দ্রাতিক শক্তি জিন্স কাপড়ের সুতোর ক্ষতি করে ফলে জিন্স খুব তাড়াতাড়ি ছিঁড়ে যেতে পারে। আধ বালতি জলে সামান্য লিকুইড ডিটারজেন্ট বা বেশ খানিকটা ভাল মানের কাপড় কাচার পাউডার গুলে নিন। এতে ১৫-২০ মিনিট জিন্সের জামা-কাপড়গুলি ভিজিয়ে রেখে দিন। এবার সাবান জল থেকে জামা কাপড়গুলি তুলে ঠাণ্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এতে জিন্সের কাপড় টেকসই হবে বেশীদিন এবং রঙ ও হবে দীর্ঘস্থায়ী।

দাগ দূর করার উপায়

আপনার শখের জিন্সে যদি কোনো খবার বা অন্য কিছুর দাগ লেগে যায়, তাহলে লেবুর রস, বেকিংসোডা ও জল দিয়ে পেস্ট বানিয়ে সহজেই সেই দাগ দূর করতে পারেন। দাগ লাগা অংশে মিশ্রনটি লাগিয়ে একটি পুরনো টুথব্রাশ দিয়ে দাগের ওপর আস্তে আস্তে ঘষুন, দেখবেন দাগ ছোপ উঠে যাবে সহজেই।

আর যদি তেলের দাগ লেগে যায়, তাহলে দাগ লাগা অংশে সামান্য বেবি পাউডার ছড়িয়ে দিয়ে সারারাত এভাবেই রেখে দিন। পাউডার ওই তেল-চর্বির দাগ শোষণ করে নেবে এবং পরের দিন কাচার পর দেখবেন তেলের দাগ উঠে গেছে।

দুর্গন্ধ দূর করার উপায়

যেহেতু বিশেষজ্ঞরা বলেন, জিন্স যতটা সম্ভব কম ধোবার চেষ্টা করুন সেহেতু আমরা সাধারণত জিন্সের প্যান্ট ৩-৪ বার পরার পরই তা কাচতে দিই। এরই মাঝে যদি জিন্স থেকে যদি কোনো কারণে দুর্গন্ধ বেরোয় বা যদি কাচার সময় না থাকে তবে চিন্তার কোনো কারণ নেই। জিন্সটিকে একটি প্লাস্টিকের জিপলক ব্যাগের মধ্যে ভরে কিছুক্ষণের জন্য ডিপ ফ্রিজের মধ্যে রেখে দিন, দেখবেন দুর্গন্ধ চলে গেছে।

রঙ দীর্ঘদিন নতুনের মত উজ্জ্বল রাখার উপায়

জিন্স কেনার পর প্রথমবার যখন একে কাচতে যাবেন, কাচার আগে জিন্সটিকে নুন জলে ভিজিয়ে রাখবেন কিছুক্ষণ। তারপর স্বাভাবিক নিয়মে এটিকে কেচে নেবেন। নুন জলে ভিজিয়ে রাখার ফলে আপনার প্রিয় জিন্সের রঙ দীর্ঘদিন অটুট এবং নতুনের মতোই থাকেব।  

পরবর্তীতে, ১ কাপ ভিনেগার এবং ১/৪ কাপ লবণ ঠান্ডা জলে মিশিয়ে তাতে জিন্সের জামা কাপড় ১৫-২০ মিনিটের জন্য ভিজিয়ে রাখুন। লবণ ও ভিনিগারের মিশ্রণ জিন্সের রঙকে উজ্জ্বল করে তুলবে এবং ফ্যাকাসে হয়ে যেতে দেবে না। চিন্তা করবেন না, সাধারণ ঠান্ডা জল দিয়ে একবার জামাকাপড়গুলিকে ধুয়ে নিলেই ভিনিগারের গন্ধ চলে যাবে।

আয়রন করুন

প্রত্যেকবার কাচার পর জিন্সটিকে ইস্ত্রি করুন। এতে জিন্সের ভাঁজ আর কাপড় ভাল থাকবে, পরবর্তীকালে পরার সময় স্বচ্ছন্দ অনুভব করবেন এবং জিন্সটি দীর্ঘদিন নতুনের মত থাকবে।

অনেকে আছেন একদিন পরেই জিন্স কেচে নেন আবার কেউ কেউ মাসের পর মাস কাচেন না – এই দুটি অভ্যাসই জিন্সের কাপড়ের খুব ক্ষতি করে। আসলে, আমরা ঠিক বুঝে উঠতে পারি না কী কী উপায়ে জিন্সের কাপড়ের যত্ন নেওয়া উচিৎ। এক্ষেত্রে, বলতে পারি উপরিউক্ত পদ্ধতিগুলি মেনে চললে আপনার প্রিয় জিন্সের পোষাক বহু বছর নতুনের মত থাকবে। এর সাথে, জিন্সের ভিতরে লাগানো সাদা ট্যাগে জিন্সটিকে পরিষ্কার করার ব্যপারে যা যা নির্দেশনা দেওয়া আছে সেসবও মেনে চলবেন। কারণ, কিছু জিন্স যেমন সাধারণ জল আর সবান দিয়েই ধুয়ে নেওয়া যায়, তেমনই কিছু জিন্সের একটু বেশী যত্নের প্রয়োজন। সাধারনত, অনেক জিন্সের ক্ষেত্রে ড্রাই ওয়াশ পদ্ধতিই বেশি কার্যকর, সেক্ষেত্রে সাবান জলে জিন্স না কাচাই শ্রেয়।

Related posts