দাঁতে প্রচন্ড ব্যথা ? ঘরোয়া এই টোটকাতে তৎক্ষণাৎ ব্যাথা দূর করুন

দাঁতে ব্যথা ? নিমেষের মধ্যে ব্যথা দূর করবে ঘরোয়া এইসব টোটকা

কয়েকদিন ধরে দাঁতে প্রচন্ড ব্যথা করছে? কোনো কিছু করেই আরাম পাচ্ছেন না? প্রতিদিন সময়মতো ব্রাশ না করলে, উল্টোপাল্টা খাবার খেলে বা খাবার পর ভাল করে কুলকুচি করে মুখ না ধুলে অর্থাৎ দাঁতের ঠিকঠাক যত্ন না নিলে দাঁতের বড়সড় ক্ষতি হয়ে যেতে পারে আমাদের অজান্তেই। দাঁতের গোড়া বা স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গিয়ে মারাত্মক যন্ত্রণা শুরু হতে পারে। আর যখন আমরা বুঝতে পারি নিজেদের অজান্তেই কি ভয়ংকর ক্ষতি আমরা করে ফেলেছি, তখন কিছু করার থাকে না।

আসলে, দাঁতে ব্যথা যেমন অসহ্য রকমের নাছোড় একটি ব্যপার, এর অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসাও ঠিক তেমনই কষ্টকর। দাঁত তোলা বা দাঁতে অস্ত্রপচারের মতো চিকিৎসা অত্যন্ত যন্ত্রণাদায়ক। তবুও, দাঁতে ব্যথা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া জরুরি। যদি একান্তই চিকিৎসকের কাছে যাওয়া সম্ভব না হয় তখন বাড়িতে বসে ঘরোয়া কিছু টোটকা দিয়ে ব্যথা কমানোর চেষ্টা করতে পারেন। যেমন –  

১. নারকোল তেল আর লবঙ্গ গুঁড়োর পেস্ট

নারকোল তেল আর লবঙ্গ গুঁড়োর মিশ্রণ দাঁতে লাগালে দাঁতের ব্যথা নিমেষের মধ্যে কমে যাবে। যদিও প্রাথমিক পর্যায়ে তা সাময়িকভাবে ব্যথা কমবে, বার বার মিশ্রণটি ব্যবহার করলে স্থাইয়ী ফল পেতে পারেন। নারকেল তেলের অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য সংক্রমণ নির্মুল করবে আর লবঙ্গের গুঁড়োয় ইউজিনল নামের এক রাসায়নিক উপাদান আছে যা ব্যথা কমাবে।

উপকরণ

  • আধ চামচ নারকোল তেল
  • আধ চামচ লবঙ্গের গুঁড়ো

করণীয়

  • কাঁচের পাত্রে দুটি উপাদান নিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে টুথ পেস্টের মত একটি মিশ্রণ বানিয়ে নিন।
  • এবার, ব্রাশের সাহায্যে মিশ্রনটি দাঁত বা মাড়ির যে অংশে সংক্রমণ হয়েছে বা ব্যথা সেখানে লাগিয়ে নিন।
  • মিশ্রণটি এভাবেই আক্রান্ত স্থানে লাগিয়ে রাখুন।
  • দিনে তিন চার বার মিশ্রণটি ব্যবহার করলে ব্যথা এবং সংক্রমণ কমে যাবে একেবারেই।

এক্ষেত্রে, লবঙ্গ গুঁড়োই মূল। নারকোল তেলের বদলে অলিভ অয়েলও ব্যবহার করতে পারেন।

এছাড়াও,

২. রসুন- রসুন থেঁতো করে অল্প নুনের সাথে মিশিয়ে দাঁত ও দাঁতের গোড়ায় লাগিয়ে রাখলে উপকার পাবেন। দাঁতে খুব বেশি যন্ত্রণা হলে এক বা দু কোয়া রসুন চিবিয়ে খেলে সাথে সাথে যন্ত্রণা কমে যাবে।

৩. পেঁয়াজ- পেঁয়াজের রসে আছে অ্যান্টিসেপটিক বৈশিষ্ট্য যা যে কোনও ক্ষত বা ব্যথা সারাতে সাহায্য করে। তাই, দাঁতে ব্যথা হলে বা মাড়িতে সংক্রমণ হলে কাঁচা পেঁয়াজ চিবিয়ে খান, উপকার পাবেন। অত্যাধিক ঝাঁঝের জন্য কাঁচা পেঁয়াজ চিবিয়ে খেতে না পারলে আক্রান্ত দাঁতের উপর পেঁয়াজ রাখলেও ব্যথা কম হবে আর আরাম পাবেন।

৪.  হিং- দুই টেবিল চামচ লেবুর রসের সাথে আধ চা চামচ হিং এর গুঁড়ো মিশিয়ে দাঁতে লাগান, খুব তাড়া়তাড়ি ব্যথা কমে যাবে।

৫. দূর্বার রস- দাঁতের স্বাস্থ্য ভাল রাখতে অনেকেই প্রতিদিন দূর্বার রস খান। দুর্বার রস দাঁতের ব্যথাও উপশম করতে পারে।

অনেক সময় দাঁতের ব্যথা খুব তীব্র হয় যা থেকে মাথা ব্যথাও শুরু হয়। এরম পরিস্থিতি তৈরি হলে বা উপরের টোটকাগুলি যদি স্থায়ীভাবে আপনার দাঁতে ব্যথা কমাতে না পারে তবে অবশ্যই একজন দন্ত চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন। আপনার মিষ্টি হাসি যাতে চিরকাল বজায় থাকে তাই আজ থেকেই দাঁতের যত্ন নেওয়া শুরু করুন। শুধু সময়মতো ব্রাশ করলেই হবে না, চিকিৎসকের নির্দেশ মেনে দাঁতের যত্ন নিতে হবে। অন্যান্য অঙ্গের স্বাস্থ্য পরীক্ষার মত দাঁতের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাও জরুরি তাই বছরে অন্তত দু’বার দন্ত চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিৎ।   

Related posts