হোয়াটসঅ্যাপের গোপনীয়তা পলিসি পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত স্থগিত

একসময় মানুষেরা আদান-প্রদানের মাধ্যম ছিল চিঠি। তারপর আস্তে আস্তে ল্যান্ডফোন এবং মোবাইল ফোনের আবির্ভাব ঘটে। মোবাইলফোনের মেসেজ এর মাধ্যমে মানুষের সাথে আর এক মানুষের আদান প্রদান ঘটত। এখন এসেছে মেসেজিং অ্যাপ। বর্তমান যুগ হলো সোশ্যাল মিডিয়ার যুগ। ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ট্যুইটার প্রভৃতির মাধ্যমে এখন এক মানুষের খবর আর এক মানুষ পায়। ফেসবুকেরও যেমন মেসেজিং অ্যাপ আছে হোয়াটসঅ্যাপও হল এমন এক ধরনের মেসেজিং অ্যাপ।

হোয়াটসঅ্যাপ কী – হোয়াটসঅ্যাপের মধ্যে তিনটি শব্দ বর্তমান- What- কি, Is- হয়, Up- উপর। কিন্তু হোয়াটসঅ্যাপের মানেটা কিন্তু এই রূপ নয়। হোয়াটসঅ্যাপ হল একটি অ্যাপ্লিকেশন তাই এর কোন বাংলায় সঠিক অর্থ নেই। এটি ইন্টারনেট প্রটোকল পরিষেবা। হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে একজন মানুষের সাথে আরেকজন মানুষের মেসেজ ছাড়াও ভিডিও কল এবং ভয়েস কলের মাধ্যমে আদান-প্রদান ঘটে। এখন তো আবার হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে অর্থ প্রদান করা যায়। ২০০৯ সালে সর্বপ্রথম এই অ্যাপটি প্রতিষ্ঠা লাভ করে। মাউন্টেইন ভিউ, ক্যালিফোর্নিয়া , যুক্তরাষ্ট্রে
জ্যান কউম ব্রায়ান একটন মিলে এই হোয়াটসঅ্যাপে উৎপত্তি করেন। গোটা বিশ্বের প্রায় 2 মিলিয়ন মানুষ হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেন। এই হোয়াটসঅ্যাপের মেসেঞ্জার টি
অ্যাপলের আইওএস, ব্ল্যাকবেরি, অ্যান্ড্রয়েড প্রভৃতি ফোনে এই অ্যাপটি ব্যবহার করা যেতে পারে।

হোয়াটসঅ্যাপের পলিসি পরিবর্তনের বিষয়

গতমাসে হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ নিজেদের গোপনীয়তা সংক্রান্ত নীতি পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেন। তাদের নতুন প্রাইভেসি পলিসিতে বলা হয়েছে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীদের যাবতীয় তথ্য তাদের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে ভাগ করে নেওয়া যেতে পারে। হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষের এই সিদ্ধান্তের পর থেকেই চারিদিকে শোরগোল পড়ে যায়। প্রশ্ন ওঠে হোয়াটসঅ্যাপের এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন নিয়ে। ব্যবহারকারীরা হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে কতটা গোপনীয়তা বজায় থাকবে সে বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে। এর ফলে বড় ধরনের চাপের মুখে পড়ে হোয়াটসঅ্যাপ দপ্তর।

কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন

অবশেষে রবিবার অর্থাৎ গতকাল হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ নিজেদের অ্যাকাউন্ট থেকে স্ট্যাটাস দিয়ে জনসাধারণের উদ্দেশে ঘোষণা করে যে ব্যবহারকারীদের গোপনীয়তা বজায় রাখার ব্যাপারে তারা বদ্ধপরিকর। হোয়াটসঅ্যাপে এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশন রয়েছে তাই হোয়াটসঅ্যাপের গোপন ম্যাসেজ এবং স্ট্যাটাস অন্য কেউ পড়তে পারে না। ব্যবহারকারীদের কন্টাক্ট লিস্টও হোয়াটসঅ্যাপ ফেসবুকে জানায় না।

হোয়াটসঅ্যাপের গোপনীয়তা পলিসি পরিবর্তনের সিদ্ধান্তের পর থেকে ব্যবহারকারীদের মনে নানা প্রশ্নের সঞ্চার হয়। নানা বিতরকের জন্যহোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ রীতিমতো বাধ্য হয়েই গত সপ্তাহে তাদের পলিসি পরিবর্তন আপাতত স্থগিত রাখতে বাধ্য হয়। তিন মাসের জন্য এই স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

Related posts